শুকরানা মাহফিলে প্রধানমন্ত্রীকে কওমি জননী উপাধি

প্রকাশ: ২০১৮-১১-০৪ ০৬:৪৪:৪৯ || আপডেট: ২০১৮-১১-০৪ ০৬:৪৪:৪৯

কর্ণফুলী ডেস্কঃ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কওমি জননী উপাধি দেওয়া হয়েছে। রোববার (৪ নভেম্বর) কওমি মাদ্রাসা শিক্ষার সর্বোচ্চ সনদ দাওরায়ে হাদিসকে (তাকমিল) সাধারণ শিক্ষার স্নাতকোত্তর ডিগ্রির সমান স্বীকৃতি দেয়ায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ আয়োজিত ‘শুকরানা মাহফিলে’ প্রধানমন্ত্রীকে এ উপাধি দেওয়া হয়।

এর আগে বেলা পৌনে ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রী সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানান আয়োজক সংশ্লিষ্ট শীর্ষ আলেমরা। সেখানে কওমি আলেমদের সঙ্গে কুশল বিনিময়ের পর প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠান মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন।
মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর পাশে বসেছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এবং নৌমন্ত্রী শাহজাহান খান।
কওমি মাদ্রাসা শিক্ষার স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুষ্ঠানে সংবর্ধনা দেওয়া হবে।

হেফাজতে ইসলামের আমির আহমদ শফীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ শোকরানা মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দেয়া হবে।
এদিকে শোকরানা মাহফিল উপলক্ষে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নেমেছে মাদরাসা শিক্ষার্থীদের ঢল। রাজধানীর বাইরের বিভিন্ন জেলা থেকে শত শত বাস ভর্তি করে মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মধ্যরাত থেকেই ঢাকায় এসেছেন।
অন্যদিকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও এর চারপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শাহবাগ ও টিএসসি মোড়ে প্রস্তুত রাখা হয়েছে পুলিশের সাঁজোয়া যান। ইউনিফর্মের পাশাপাশি সাদা পোশাকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

মৎস্যভবন, হাইকোর্টের সামনের এলাকা, দোয়েল চত্ত্বর, টিএসসি থেকে সোহরাওয়র্দী উদ্যানের প্রতিটি প্রবেশ পথে সতর্ক অবস্থা দেখা গেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যদের। এ ছাড়া প্রতিটি প্রবেশপথে বসানো হয়েছে আর্চওয়ে। মেটাল ডিটেক্টর ও হাতে তল্লাশির মধ্য দিয়ে সভাস্থলে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে।

ট্যাগ :